পথচলার গল্প

স্ট্যাটাস:

কেবল মুঠোয় বন্দী কফির একলা কাপ,
ডিপ্রেসনের বাংলা জানি ‘অনেক মন খারাপ’!

 
: ডিপ্রেসন?
: হুম। 🙁
: ক্যান?
: জানি না।
: ঘুমান না কেন?
: ঘুম আসে না যে।
: কারণ কি?
: জানি না।
: সুখের অসুখ?
: একদম না। মাঝে মাঝে এরকম হয়।
: ইদানিং বেশী হচ্ছে …
: তা ঠিক।

: একটা টোটকা দিই ।
: দিন।
: হেটে আসুন
: হা হা হা হা। অ্যাসিডিটির সমস্যা না কিন্তু।
: পিচঢালা রাস্তায়।
: রাত কত হয়েছে খেয়াল আছে?
: খালি পায়ে।
: হিমু?
: না।
: অবশ্যই।
: আপনি আপনিই, আপনি হিমু হবেন কেন?
: :/

: শেষ কবে হেটেছেন পিচঢালা রাস্তায়?
: মনে নাই?
: খালি পায়ে বাসার বাইরে?
: অনেক আগে। গ্রামের বাড়িতে।
: গুড।
: ছাই। কাদা পাড়িয়ে যেতে হয়েছিল।
: হা হা হা হা
: 🙁

: পিচ ঢালা রাস্তায় হাটার অভিজ্ঞতা অন্যরকম।
: আপনি হেটেছেন কবে লাস্ট?
: গত মাসে। শ্রীমঙ্গলের রাস্তায়।
: হিংসা।
: চলে আসেন, আপনাকে খালি পায়ে পিচ রাস্তায় হাটা শিখিয়ে দিই।
: মাথা খারাপ। দেড়টা বাজে।
: জেগেই তো আছেন।
: সম্ভব না। এই স্ক্রিনে বসে থাকা ছাড়া হাটাহাটির সুযোগ নেই।
: ওকে। সেভাবেই না হয় শুরু করলাম।
: ভার্চুয়াল হাটাহাটি?
: হুম। রুমের বাতিটা নিভিয়ে দিন।
: পাগলামি।
: কোথায় হাটবেন?
: ভার্চুয়াল হাটাহাটি আবার কি?
: লালমাটিয়ায় না বাসা?
: হ্যা।
: আড়ং এর সামনে চলে আসুন। কতক্ষন লাগবে?
: হা হা হা।
: রেডি হয়ে নিন।
: কিরকম?
: হাটতে বেরোচ্ছেন, রেডি হবেন না?
: স্যান্ডেল কি রেখে আসবো? নাকি হাতে নিয়ে হাটবো?
: রেখে আসুন।
: কি পড়বো?
: শাড়ি।
: আয়রন করা নেই।
: আপনার যা ইচ্ছা।
: লাল কামিজ, সাদা হিজাব?
: এই রাতে লাল কেন?
: তবে?
: যা ইচ্ছে।
: সাদা কামিস, নীল ওড়না।
: হিজাব বাদ?
: ওড়নাই হিজাব।
: গুড। ৫ মিনিটের মধ্যে আসছি। থাকবেন।
: আচ্ছা 🙂

: আছেন?
: …
: হ্যালো?
: …
: আপনি সত্যি সত্যি চলে আসছেন নাকি? চ্যাটিং চলছে কিন্তু, ভার্চূয়ালি হাটার কথা আমাদের, রিয়েল ওয়ার্ল্ডে না… আছেন?
: ভুলে যান ও কথা।
: কি ব্যাপার রিপ্লাই দিচ্ছেন না কেন? কি ভুলে যাবো?
: ভার্চুয়াল ওয়ার্ল্ড। আপনি এখন আড়ঙ এর সামনে।
: হা হা হা

: স্যান্ডেল পড়ে এসেছেন কেন? আশ্চর্য।
: বাসা থেকে খালি পায়ে বের হবো নাকি? পানি জমে আছে, গোটা দশেক ইটের উপর পা দিয়ে আসতে হয়।
: তো?
: শুরুতেই যদি পায়ে হাটার ব্যাপারে বিতৃষ্ণা চলে আসে তো কেমনে হবে? কিন্তু আপনার হাতে এটা কি?
: কই?
: ফুল মনে হল!
: ওহ ফুলই তো। আপনার জন্য।
: থ্যাঙ্কু। কেমনে হল?ম্যাজিক?
: উহু। আপনার আর আমার সম্মিলিত ইচ্ছেশক্তির ফল।
: ভাব্। আসুন হাটি।
: স্যান্ডেল?
: এখানে রেখে যাচ্ছি, ফেরার সময় লাগবে।

: পিচ রাস্তায় খালি পায়ে হাটার সবচে বড় সমস্যা জানেন?
: কি?
: পায়ের নিচে ছ্যাপ পড়বে।
: ইয়াক।
: এটা আমার বন্ধু ডাক্তার ইমরানের থিওরী। মসজিদ থেকে স্যান্ডেল চুরি হওয়ার পরে এই থিওরী দিয়েছে সে।
: হা হা হা
: তার মতে, এমনিতে স্যান্ডেল ছ্যাপে পরে না, কিন্তু খালি পায়ে হাটলে একটু পর পরই ছ্যাপ-এ পা পড়বে।
: খালি পায়ে হাটার উৎসাহে এখন বাধা দিচ্ছেন- এইটা কিন্তু ঠিক না।

: সংসদ ভবনে ঢুকেছেন কখনো?
: না।
: বসেছেন ফুটপাতে?
: না।
: চলুন বসি।
: আজ নয়, আজ শুধু হাটবো। আরেকদিন।

: কেমন লাগছে?
: শৈশব শৈশব অনুভূতি।
: আকাশে চাদ নেই আজ, যেদিন চাদ থাকবে, বাতাস হবে সেদিন আরেকটা টোটকা দেব।
: আজ নয় কেন?
: আজ চাদ নেই তাই।
: তাই বলে জানবো না? আরেকদিন যদি আমার হাটতে ইচ্ছে হয়?
: সেদিন বলে দেবো।
: সেদিন তো আপনার সাথে নাও হাটতে পারি।
: হাটবেন।
: কেন?
: আমি সাথে না থাকলে তো আপনি হাটার আনন্দ পাবেন না।
: বোগাস।
: একদম নয়। পিচ রাস্তার সাথে মিশে আছি আমি।
: ইমপ্রেস করার চেষ্টা করছেন?
: হু।
: কেন করছেন?
: পিচ রাস্তায় হাটার জন্য আপনি আমাকে চান, তাই।
: মিথ্যে কথা।
: সত্যিটা কি?
: জানি না।
: আমি জানি।
: কি?
: আমি আপনার সাথে হাটতে চাই।
: আমরা কি হাটছি না?
: আরও হাটতে চাই – এখানে, ওখানে, আজ কাল পরশু।
: … …
:কিছু বলবেন না?
: আমার মন খারাপ হয়ে গেছে। আমি এখন যাই।

===============================
পাগড়ি শেরওয়ানী পড়া ছেলেটা স্যান্ডেল খুলে স্টেজে বসা মাত্রই কতগুলো কিশোর কিশোরী স্যান্ডেল নিয়ে কোথায় ছুটে পালাল।
: স্যান্ডেল হাওয়া 🙁
: পয়সা ফেলো, পেয়ে যাবে।
: পুরান কথা। নতুন কিছু বল।
: আমারগুলোও লুকিয়ে ফেলেছি। খালি পায়ে যাবো আজ। 😉

যে সকল মানবী ফেসবুকে চ্যাটিং-এর মাধ্যমে এই ধরনের গল্পগুলো লেখার উপকরণ সরবরাহ করছেন, তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা।

About দারাশিকো

নাজমুল হাসান দারাশিকো। প্রতিষ্ঠাতা ও কোঅর্ডিনেটর, বাংলা মুভি ডেটাবেজ (বিএমডিবি)। যোগাযোগ - [email protected]

View all posts by দারাশিকো →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *