নারী সাংবাদিক পেটানোর ছবি বনাম দাড়ি-টুপিওয়ালা বৃদ্ধ পেটানোর ছবি

গতকাল থেকে শুরু করে দুটো ছবি বারবার ঘুরে ফিরে আমার নিউজফিডে আসছে। ছবি দুটো কি সেটা সবাই-ই জানেন। গতকাল হেফাজতে ইসলামের লংমার্চে একুশে টেলিভিশনের একজন নারী সাংবাদিককে পিটিয়েছে লংমার্চে আগত কিছু লোক। দ্বিতীয় ছবিটিতে লংমার্চ থেকে ফেরার সময় একজন বৃদ্ধকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেছে শাহবাগ আন্দোলনকে সমর্থনকারী কিছু যুবক। নারী সাংবাদিককে পেটানোর ছবি খুব বেশী পাওয়া যায় না কিন্তু বৃদ্ধকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করার ঘটনার প্রায় পাঁচ থেকে ছ’টি ছবি শেয়ার করা হচ্ছে।

আমি গতকাল থেকেই ছবিগুলো দেখছি, কারা শেয়ার করছে সেটাও দেখছি। একটা ছোট্ট ফাইন্ডিং আছে। যারা নারী সাংবাদিককে পেটানোর প্রতিবাদ করে ছবিটি শেয়ার দিচ্ছেন তারা বৃদ্ধকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করার ছবি শেয়ার দিচ্ছেন না, অন্যদিকে – যারা বৃদ্ধকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করার ছবি শেয়ার দিচ্ছেন, তারা নারী সাংবাদিককে আক্রমনের ছবি শেয়ার দিচ্ছেন না। আপনারা যারা ছবিদুটো শেয়ার করছেন, তারা স্বীকার করুন আর না করুন – একটি মাত্র ঘটনার প্রতিবাদ করে আপনি অন্য ঘটনাটিকে সমর্থন করছেন !

যারা বৃদ্ধকে হামলার ছবি শেয়ার করছেন না তাদেরকে যদি জিজ্ঞাসা করা হয় – আপনার সহযোগী বন্ধুরা আপনার বাবার বয়সী একজন বৃদ্ধকে নির্মমভাবে পিটিয়ে রক্তাক্ত করলে অথচ আপনি চুপ কেন – তখন কেউ কেউ হয়তো জবাব দেবে – যারা পিটিয়েছে তারা কিছু উগ্র, অভদ্র যুবক। ঠিক একই রকম সাফাই গাইবে অন্যপক্ষ যদি তাকে জিজ্ঞেস করা হয় আপনার বোনের মত একটি মেয়েকে কিভাবে আপনার সহযোগী বন্ধুরা আক্রমণ করল আর কেন আপনি প্রতিবাদ করলেন না।

যে সকল বন্ধুরা নারী সাংবাদিককে আক্রমনের প্রতিবাদ করছেন তাদেরই কেউ কেউ আরেকটি ছবি শেয়ার করছেন – উপরে নারী সাংবাদিকের ছবি যার ক্যাপশন ‘হারাম’, নিচের ছবিতে বেগম খালেদা জিয়া মিটিং করছেন যার ক্যাপশন ‘আরাম’; এই ছবি আপনি কিভাবে শেয়ার করেন? একজন নারী হিসেবে একুশে টিভির সাংবাদিকের যে অধিকার, বিরোধী দলীয় নেত্রী হবার কারণে কি বেগম খালেদা জিয়া সেই অধিকার থেকে বিচ্যুত? এক মুখ দিয়ে নারী অধিকারের কথা বলে সেই একই মুখে আরেক নারীকে আক্রমণ করতে বাঁধে না?

আমরা এক পক্ষ অন্য পক্ষকে গোঁড়াপন্হী, বদ্ধচিন্তার অধিকারী এবং নিজেদেরকে বিবেচক, মুক্তচিন্তার অধিকারী দাবী করছি – কিন্তু আমাদের এই আচরন কি বদ্ধচিন্তার পরিচায়ক নয়? নিজেদেরকে সঠিক হিসেবে দাবী করার জন্য আমি আপনি আমরা চোখের সামনে ঘটে যাওয়া অন্যায়কে প্রশ্রয় দিয়ে যাচ্ছি – ঠিক কোন যুক্তিতে? এত আয়োজন করে আমি আপনি আমরা আপনারা যে ঘৃণার চাষ এবং আবাদ করে যাচ্ছি – তার শেষ ফলাফলটা কি হবে?

ভেবে দেখার প্রয়োজন আছে।


দারাশিকো

নাজমুল হাসান দারাশিকো। চলচ্চিত্র বিষয়ক লেখক ও ব্লগার। কোঅর্ডিনেটর, বাংলা মুভি ডেটাবেজ (বিএমডিবি) যোগাযোগ - [email protected]

ফেসবুক মন্তব্য

3 Responses

  1. Anonymous says:

    He he ……….

  2. মুগ্ধ হয়ে গেলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares